ফেসবুক মার্কেটিং কি, কেন ও কিভাবে করবেন ? বিস্তারিত জানুন

 আমাদের আজকের এই লেখার মধ্যে আমি আপনাদের

সঙ্গে ফেসবুক মার্কেটিং নিয়ে বিস্তারিত ভাবে আলোচনা করব।

ফেসবুক মার্কেটিং কি, কেন ও কিভাবে করবেন ? বিস্তারিত জানুন

অনেকেই আছেন যারা ফেসবুক মার্কেটিং সম্পর্কে জানতে চান তাদের জন্যই আমাদের আজকের এই লেখাটি। 

বর্তমান সময়ে অনেক মানুষেরা ফেসবুক ব্যাবহার করে তাদের কোম্পানি বা প্রোডাক্ট এর মার্কেটিং করে বেশ ভাল পরিমানে একটা প্রোডাক্ট বিক্রি করতে পারতেছে অনায়াসেই। তাই আপনি ও যদি সঠিকভাবে ফেসবুক এর মাধ্যমে মার্কেটিং করে আপনার বিজনেস প্রসার করতে পারেন তবে আশা করি আপনি ও আপনার সার্ভিস বা কোন প্রোডাক্ট থাকলে সেগুলোকে খুব সহজেই বিক্রি করতে পারবেন। ফেসবুক এমন একটা জায়গা যেখানে আপনি ইচ্ছা করলে হাজার হাজার লাখ লাখ মানুষের কাছে আপনার প্রোডাক্ট বা সার্ভিস সম্পর্কে জানাতে পারবেন। 

আর যত বেশি মানুষের কাছে আপনি আপনার প্রোডাক্ট সম্পর্কে জানাতে পারবেন ঠিক তত বেশি পরিমানে বিক্রি হবার সম্ভাবনা থাকবে। যদি প্রতিদিন ১০০০ লোকের কাছে আপনার প্রোডাক্ট সম্পর্কে জানাতে পারেন তাহলে সেখান থেকে কম করে হলে ও ৫০০-৬০০ লোকেরা তো কিনবেই। আপনার প্রোডাক্ট ভাল হলে এর থেকে ও বেশি মানুষের কেনার সম্ভাবনা আছে। আর আপনি ফেসবুক এর মাধ্যমে কিভাবে মার্কেটিং করবেন সেই বিষয়টা নিয়েই মূলত আমাদের আজকের এই আর্টিকেলের ভিতর আলোচনা করা হবে।

ফেসবুক মার্কেটিং কি ?

ফেসবুক মার্কেটিং বলতে আসলে আপনি কি বুজেন? ফেসবুক মার্কেটিং হচ্ছে ফেসবুক এর মাধ্যমে বিভিন্ন সার্ভিস কিংবা কোন পণ্য সম্পর্কে Customer দেরকে জানানো। মানুষকে জানাতে পারলেই আপনি আপনার জিনিস বিক্রি করতে পারবেন। মনে করেন আপনার দোকানে সব আছে কিন্তু আপনার দোকান সম্পর্কে কেউ জানে না তাহলে কি কেউ আপনার দোকানে আসবে বলেন। কেউ আসবে না, আপনি কি বিক্রি করেন সেটাও কেউ জানে না। আর আপনি যদি মানুষদেরকে জানাতে চান তাহলে আপনাকে ফেসবুক এর মাধ্যমে মার্কেটিং করা লাগবেই। মানুষেরা জানতে পারলে তবেই তো তারা আপনার প্রোডাক্ট কিনবে তাইনা। 

যেমন মনে করেন অনেকেই আছেন যারা ফেসবুকে টি শার্ট, পেন্ট, পাঞ্জাবী, জুতা, এরপরে মহিলাদের অনেকে রকমের জামা কাড়র বিক্রি করতে চাচ্ছে। আবার অনেকে বিভিন্ন রকমের সার্ভিস ফেসবুক এর মাধ্যমে বিক্রি করবে বা তার দোকান আছে অফলাইনে। আর এই যে ফেসবুককে ব্যাবহার করে আপনি আপনার প্রোডাক্ট কিংবা সার্ভিস সম্পর্কে মানুষদেরকে জানাবেন এটাকেই মূলত ফেসবুক মার্কেটিং বলে হয়ে থাকে। আশা করি যে বুজতে পারছেন ফেসবুক মার্কেটিং কি ?

ফেসবুক মার্কেটিং কেন করবেন ?

আপনাদের মনে প্রশ্ন আসতে পারে যে, ফেসবুক এর মাধ্যমে কেন মার্কেটিং করবেন। ফেসবুক হল একটি সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম। ২০২১ সালের দিকে প্রায় ঢাকাতেই প্রতিদিন ২২ মিলিয়ন মানুষেরা ফেসবুক ব্যাবহার করতেন। আর যেটা ২ কোটি ২০ লাখ প্রায় বুজতে পারছেন আপনি কি পরিমানে মানুষ ফেসবুক ব্যাবহার করেছেন প্রতিদিন তাও শুধু ঢাকাতে। 

আর বর্তমানে এখন তো ২০২২ সাল চলছে। সময়ের সাথে সাথে ফেসবুক ব্যাবহারকারীর সংখ্যা বেড়েই চলছে। আমাদের বাংলাদেশে F Commerce Market এর আকার প্রায় ৩১২ কোটি টাকা। F Commerce  হচ্ছে ফেসবুক Platfrom এর উপরে নির্ভর করে যে সকল বিজনেস চলে তাকেই মূলত F Commerce বলা হয়। এক কথায় বললে ফেসবুক এর মাধ্যমে যে সকল ক্রয় বিক্রয় করা হয়ে থাকে তাকেই F Commerce বলা হয়।    

ফেসবুক পেজ এর মাধ্যমে মার্কেটিং করবেন কিভাবে ? 

আপনি কি ফেসবুক পেজ এর মাধ্যমে মার্কেটিং করতে চাচ্ছেন কিন্তু কিভাবে করবেন তা বুজতে পারছেন না। তাহলে জেনে নিন কিভাবে আপনি খুব সহজেই ফেসবুক পেজ থেকে মার্কেটিং করবেন। আপনি যে ফেসবুক পেজ খুলবেন সেটাকে ভাল ভাবে করে সাজিয়ে গুছিয়ে রাখা লাগবে। একটি ফেসবুক পেজ এর ভিতরে কেউ প্রবেশ করলে সে কিন্তু সবার আগে ফেসবুক পেজ এর   লোগো আর কভার ফটো দেখতে পায়। তাই আপনি ইচ্ছা করলে আপনার প্রোডাক্ট কিংবা আপনার সার্ভিস Releted একটি ছবি ব্যাবহার করতে পারেন।  

ফেসবুক পেজে Profile Picture অনেক ছোট হওয়ার কারনে আপনি যদি সেখানে কিছু লিখে দেন তাহলে সেটা নাও বুজাতে পারে, তাই আপনি লোগো ব্যাবহার করবেন আপনার কোম্পানির। আর তাহলে সেটা আপনার জন্যই ভাল হবে আপনার ফেসবুক পেজটিকে সবার থেকে আলাদা করে তুলবে। ফেসবুক পেজ এর ভিতরে আপনি শপ নামে একটি অপশন পাবেন সেখানে আপনি আপনার প্রোডাক্ট অথবা সার্ভিস এর সকল তথ্য দিবেন ছবিসহ আর প্রোডাক্ট এর দাম ও লিখে রেখে দিবেন।  

এরপরে আপনি About Option টিকে সুন্দর ভাবে করে সাজিয়ে লিখে রাখবেন। যেমন মনে করেন, মানুষের ফোনে কথা বলে তারপরে অর্ডার করতে একটু সাছন্দবোধ করে তাই আপনি আপনার ফোন নাম্বার দিতে পারেন, বা ফোন দিলে প্রোডাক্ট সম্পর্কে সকল তথ্য Customer এর কাছে সুন্দর ভাবে বুজিয়ে বলতে পারবে, এই রকমের একজনের নাম্বার আপনি অ্যাড করে রাখতে পারেন। আপনার যদি কোন ওয়েবসাইট থেকে থাকে তবে সেই ওয়েবসাইট এর লিঙ্ক অ্যাড করতে পারেন। এরপরে আপনার যদি কোন ইউটিউব চ্যানেল থাকে বা Social media এর অ্যাকাউন্ট থাকে তবে সেই অ্যাকাউন্ট এর লিঙ্ক অ্যাড করে রাখতে পারেন। 

Caption লেখার সময়ে বানান ভুল করবেন না। সঠিক ইমজি ব্যাবহার করার চেষ্টা করবেন। প্রোডাক্ট এর ডেমোর সাথে যদি প্রোডাক্ট এর লিঙ্ক ব্যাবহার করতে পারেন তবে বিক্রি হবার সম্ভাবনা অনেক গুনে বেড়ে যাবে। আপনার দোকানে যদি নতুন করে কোন প্রোডাক্ট আসে তবে সেটা সম্পর্কে আপনার ফেসবুক পেজে আপডেট জানিয়ে দিতে হবে। কেউ যদি আপনার পোস্ট এর নিচে কমেন্ট কর তবে তার কমেন্টের রিপ্লাই দেওয়ার চেষ্টা করবেন, কারন এতে করে দেখা যায় Engagement বেড়ে যায়। কেউ যদি পোস্ট শেয়ার করে তবে আপনি সেখানে তার পোস্ট এর নিচে গিয়ে কমেন্ট করবেন তাহলে সেই মানুষটি আপনার প্রোডাক্ট কিনতে অনেকটাই আগ্রহি হয়ে যাবে। 

উপরের দেওয়া নিয়মগুলো যদি মেনে চলতে পারেন আশা করি, আপনি ফেসবুক পেজ ব্যাবহার করে বেশ ভাল পরিমানে প্রোডাক্ট বা আপনার সার্ভিস বিক্রি করতে পারবেন।

ফেসবুক গ্রুপ এর মাধ্যমে কিভাবে মার্কেটিং করবেন

ফেসবুক গ্রুপ আসলে ফেসবুক পেজ এর থেকে অনেক বেশি পরিমানে কার্যকরী। ফেসবুক পেজ হচ্ছে One Way Communication System আশা করি বুজেছেন। ফেসবুক পেজ এর রিচ ২০১৫ সালের দিকে ছিল 5.2% আর যেটা এখন কমে গিয়ে ১% এর থেকেও কম হয়ে গিয়েছে। তাই মানুষের কাছে শুধু ফেসবুক পেজ এর মাধ্যমে সকল তথ্য শেয়ার করা বা তাদেরকে জানানো অসম্ভব।

অন্যদিকে ফেসবুক গ্রুপ হচ্ছে

Multi way communication system. ফেসবুক গ্রুপে সবাই পোস্ট করতে পারে মানে গ্রুপের যারা মেম্বার থাকে তারা সবার পোস্ট করে। আর এর ফলে অনেক Content হয়ে যায়। আর যার ফলে মানুষের কাছে সকল কিছু শেয়ার করা অনেকটাই সহজ হয়ে যায়। user generated content 6.9 গুন বেশি পরিমানে engagement বানিয়ে থাকে। গ্রুপে campaign এর মাধ্যমে খুব সহজেই  engagement বাড়িয়ে ফেলা যায়। গ্রুপ এর Community বেড়ে গেলে প্রোডাক্ট এর পরিচিতি ও আগে থেকে অনেক বেড়ে যায়।    

UGC – User Generated Content যত বেশি পরিমানে বাড়বে তত বেশি পরিমানেই Engagement বেড়ে যাবে। 

আমাদের শেষ কথা

তাহলে আশা করি যে আমাদের আজকের লেখা থেকে আপনারা ফেসবুক মার্কেটিং সম্পর্কে সকল তথ্য জানতে পারছেন। অর্থাৎ, ফেসবুক মার্কেটিং কি, ফেসবুক মার্কেটিং কেন করবেন। ফেসবুক পেজ এর মাধ্যমে বা গ্রুপের মাধ্যমে কিভাবে খুব সহজেই মার্কেটিং করে আপনি আপনার প্রোডাক্ট বা সার্ভিস বিক্রি করতে পারবেন সেই সম্পর্কে জানতে পারলেন। আমাদের আজকের লেখাটি  আপনাদের বন্ধুদের সাথে শেয়ার করে দিবেন তাহলে তারাও এই বিষয়গুলো সম্পর্কে জানতে পারবে।  

1 Comments

  1. অসাধারণ পোস্ট। অনেক উপকৃত হলাম।

    ReplyDelete
Previous Post Next Post