মাসে ২০ হাজার টাকা আয় করার উপায়

আমাদের আজকের আর্টিকেলে আমি আপনাদের সঙ্গে মাসে

মাসে ২০ হাজার টাকা আয় করার উপায়

২০ হাজার টাকা আয় করার উপায় নিয়ে আলোচনা করব। অনেকেই আছেন টাকা রোজগার করতে চান কিন্তু টাকা ইনকাম করার সঠিক পথ না পেয়ে করতে পারেন না। আমি আজকের আর্টিকেলে মূলত এই বিষয়টা নিয়েই আলোচনা করব যে, কিভাবে আপনারা মাসে ২০ হাজার টাকা আয় করতে পারবেন। তাহলে আসুন আর কথা না বাড়িয়ে আজকের বিস্তারিত আলোচনা শুরু করা যাক।

 

আপনি যদি অনলাইন থেকে টাকা আয় করতে চান তবে আপনার ৩ টি জিনিসের দরকার হবে সেগুলো নিচে দিয়ে দিলাম। মাসে ২০ হাজার টাকা আয় করার উপায় জানতে আর্টিকেলটি পড়তে থাকুন।

 

·       আপনার দক্ষতা থাকতে হবে।

·       যেকোনো একটি ডিভাইস ল্যাপটপ অথবা কম্পিউটার।

·       আর তার সাথে ইন্টারনেট কানেকশন থাকা লাগবে।

 

এইগুলো থাকলেই আপনি অনলাইনের মাধ্যমে ঘরে বসেই টাকা রোজগার করতে পারবেন। আশা করি বুজতে পারছেন, আসুন তাহলে এখন জেনে নেওয়া যাক অনলাইনের মাধ্যমে আপনারা কি কি কাজ করতে পারবেন। আর অফলাইনের মাধ্যমে কোন কোন কাজ করে মাসে ২০ হাজার টাকা বা তার থেকে ও বেশি আয় করতে পারবেন সেটা ও আজকের আর্টিকেলে আলোচনা করব।

০১. টিউশনি করিয়ে রোজগার করতে পারেন  

টিউশনি করানো বর্তমান সময়ে ছাত্র-ছাত্রীদের কাছে সবথেকে পছন্দের ১টি বিষয়। অন্যকে পড়ালে তাকে বুজানোর জন্য আপনাকে ও আগে থেকে পড়ে আসতে হবে যার ফলে আপনার জ্ঞান ও বাড়বে। আর সবথেকে বড় কথা হল টিউশনি ১টি সম্মানজনক পেশা। আপনি যদি ভাল করে পড়াতে পারেন তবে আপনার নামে সুনাম সারা এলাকাতে ছড়িয়ে যাবে। আর তাহলে দেখা যাবে অনেকেই আপনার কাছে পড়তে আসবে। শহর এলাকাতে প্রত্যেক টিউশনিতে ৫০০০ থেকে ৬০০০ টাকা পর্যন্ত দিয়ে থাকে। আর আপনি যদি এই রকমের ৫ থেকে ৬ টা টিউশন করাতে পারেন তাহলে দেখা যাবে, প্রতি মাসে ২০ হাজার টাকা এমনিতেই চলে আসবে। 

 

তবে গ্রামে এত বেশি দেওয়া হয় না, ৫০০ টাকা বা ৬০০ টাকা এই রকমের দেওয়া হয়ে থাকে।   আপনি গ্রামে বসে যদি টিউশনি করান তবে আপনি এক সাথে ৪০ থেকে ৫০ জনকে এক সাথে পড়াতে পারেন। কোন সমস্যা নেই, টাকার পরিমাণ কম হলে ও একসঙ্গে অনেক Students দেরকে পড়াতে পারবেন। আর আপনি যদি এই ভাবে গ্রামে কিংবা শহরে বসে টিউশনি করাতে পারেন তাহলে কিন্তু আপনি অনেক সহজেই প্রতি মাসে ২০ হাজার টাকা রোজগার করতে পারবেন। প্রতি মাসে ২০ হাজার টাকা আয় করা আপনার জন্য খুব একটা কষ্টকর হবে না আশা করি।

০২. ওয়েব ডিজাইন (মাসে ২০ হাজার টাকা আয় করার উপায়)

ওয়েব ডিজাইন এর কাজ যদি আপনি পারেন তাহলে কিন্তু দেশের মানুষ বা আমাদের দেশের বাহিরের যেসমস্ত মানুষ আছে তাদের ওয়েবসাইট এর ডিজাইনের কাজ করে দিয়ে খুব সহজেই টাকা রোজগার করতে পারবেন। আর হ্যাঁ বর্তমান সময়ে এখন Freelancing Marketplace গুলোতে অনেক বেশি পরিমানে কাজ পেয়ে যাবেন এই ওয়েব ডিজাইন এর উপরে। আর বর্তমানে যেরকমের চাহিদা রয়েছে, আশা করি পরবর্তীতেও এই কাজের চাহিদা আর ও বাড়বে। আপনি যদি এই কাজ পারেন তবে আজকে থেকে কাজ করা শুরু করে দিতে পারেন।

 

আর আপনি যদি ওয়েব ডিজাইন এর কাজ না জানেন তবে আপনাকে এই কাজ শেখার জন্য ৬ মাস থেকে ১ বছর এর মত সময় দিতে হবে, তারপরে আপনি কাজ শেখার পরে কাজ করা শুরু করে দিতে পারবেন। তবে এখানে নির্দিষ্ট কোন সময় নেই বলতে গেলে আপনি ৬ মাসেও শিখে নিতে পারেন আবার ১ বছর বা তার থেকে বেশি সময় ও লেগে যেতে পারে। এটা সম্পূর্ণ নির্ভর করবে আপনার উপরে আপনি যত বেশি সময় দিতে পারবেন তত তাড়াতাড়ি কাজ শিখতে পারবেন। আশা করি বুজতে পারছেন। একটা কথা মনে রাখবেন পরিশ্রম ছাড়া কিছু হয় না।

 

০৩. ক্রয় বিক্র করার বিজনেস (মাসে ২০ হাজার টাকা আয় করার উপায়)

বর্তমান সময়ে এখন অনেকেই অনলাইনের মাধ্যমে বিভিন্ন ধরনের ধরনের প্রোডাক্ট কেনা বেচা করছে। আপনিও কিন্তু এই বিজনেস করতে পারেন যেকোনো প্রোডাক্ট অল্প দামে কিনে তারপরে সেটাকে অনলাইনের মাধ্যমে বেশি দামে বিক্রি করে দিতে পারেন।

 Read More - মাসে ৫০ হাজার টাকা আয় করার উপায়

যেমন মনে করুন, আপনি একটি পাঞ্জাবী ৪৫০ টাকা দিয়ে কিনলেন এখন সেটিকে আপনি ৭০০ টাকাতে বিক্রি করে দিলেন। বাকি যে টাকা থাকে ৪৫০ টাকা বাদে সেটা সম্পূর্ণটাই আপনার লাভ। আর এই ভাবে বিজনেস করে কিন্তু আপনি খুব সহজেই প্রতি মাসে ২০ হাজার বা তার থেকে ও বেশি টাকা মাসে রোজগার করতে পারবেন। মাসে ২০ হাজার টাকা আয় করার উপায় হিসেবে এটিও অনেক ভাল।

০৪. আর্টিকেল রাইটিং করে রোজগার করতে পারেন 

আপনি যদি লেখালেখিতে ভাল হয়ে থাকেন তবে আপনি আর্টিকেল রাইটার হিসেবে কাজ করতে পারেন। আর্টিকেল কি? আপনি এখন যে আমার এই লেখাটিকে পড়ছেন এটাই হচ্ছে একটি আর্টিকেল।

 

একটি ওয়েবসাইট এর অ্যাডমিন কখনোই নিজেই সব আর্টিকেল লিখতে পারবে না। সময় হয়ে উঠে না অনেকের আবার লেখার জন্য চাকরি কিংবা বিজনেস এর কাজে বিজি থাকার কারনে লিখতে পারে না। তাই তারা তাদের ওয়েবসাইট এর জন্য আর্টিকেল রাইটার নিয়োগ করে থাকে। আর যারা তাদের ওয়েবসাইট এর জন্য আর্টিকেল লিখে দেয়। আপনি যদি ভাল মানের আর্টিকেল লিখতে পারেন তবে ২০ হাজার কেন তার থেকে ও বেশি পরিমানে টাকা প্রতি মাসে রোজগার করতে পারবেন অনায়াসেই।

 

আর্টিকেল লেখার জন্য গুগলে সার্চ করলে অনেক ওয়েবসাইট পেয়ে যাবেন। সেই সমস্ত ওয়েবসাইট এর অ্যাডমিনদের সাথে কথা বলে তাদেরকে আর্টিকেল লিখে দিতে পারেন। আর্টিকেলের দাম অনেক বেশি। আপনি যদি ১০০০ ওয়ার্ড এর ইংলিশ আর্টিকেল লিখে দিতে পারেন তবে তার জন্য ১০০০ থেকে ১৫০০ বা তার থেকে ও বেশি নিতে পারবেন। মাসে ২০ হাজার টাকা আয় করার উপায় হিসেবে এই বিজনেস ও অনেক ভাল।

 

তবে আপনি যদি বাংলা আর্টিকেল লিখেন এত টাকা পাবেন না বাংলা আর্টিকেল লিখলে ৩০০ থেকে ৫০০ টাকা পাবেন ১০০০ ওয়ার্ড এর জন্য। আর আপনি যদি ইংলিশ আর্টিকেল প্রতিদিন একটি করে ও লিখে দিতে পারেন, তাহলে মাসে ৩০ টি আর্টিকেল লিখে দেখা যাবে খুব সহজেই প্রতি মাসে আপনার ২০ হাজারে টাকা রোজগার হয়ে যাবে। আশা করি বুজতে পারছেন,মাসে ২০ হাজার টাকা আয় করার উপায় সম্পর্কে এই বিষয়ে আর ও জানতে আর্টিকেলটি পড়তে থাকুন।

০৫. অ্যাফিলিয়েট মার্কেটিং করে রোজগার করতে পারেন

আপনি যদি অনলাইনের মাধ্যমে ঘরে বসেই টাকা রোজগার করতে চান তবে আপনি অ্যাফিলিয়েট মার্কেটিং এর কাজ করতে পারেন। অ্যাফিলিয়েট মার্কেটিং এর কাজ হল আপনি অন্য একটা কোম্পানির হয়ে তাদের প্রোডাক্ট বিক্রি করে দিবেন। আর সেই কোম্পানি থেকে আপনাকে তার  জন্য নির্দিষ্ট পরিমানে একটা কমিশন দিবে। আপনি চাইলে ডিজিটাল প্রোডাক্ট কিংবা ফিজিক্যাল প্রোডাক্ট যেকোনো প্রোডাক্ট নিয়ে কাজ করতে পারেন।

 

যেমন মনে করুন, আপনি যদি ফিজিক্যাল প্রোডাক্ট বিক্রি করেন তবে আপনি প্রোডাক্ট Dallybary হয়ে যাওয়ার পরে টাকা পাবেন না কিন্তু আপনি যদি ডিজিটাল প্রোডাক্ট বিক্রি করেন তবে প্রোডাক্ট কেনার সাথে সাথেই আপনার অ্যাকাউন্ট এর ভিতরে টাকা জমা হয়ে যাবে। আপনি কমিশন এর টাকা ব্যাংক এর মাধ্যমে নিতে পারেন, আর আপনি যদি কোন বাংলাদেশি কোম্পানির হয়ে কাজ করেন তবে আপনি বিকাশ নগদ বা রকেটের মাধ্যমে তাদের কাছ থেকে পেমেন্ট নিতে পারবেন।  

আর কমিশন এর ব্যাপারটা হচ্ছে মনে করেন আপনি ১০,০০০ টাকার একটি প্রোডাক্ট বিক্রি করে দিলেন এখন আপনি যদি ১০% কমিশন পান তবে আপনাকে তারা ১০০০ টাকা দিবে। আর যদি ১৫% করে দেয় তবে আপনি ১৫০০ টাকা পাবেন। অর্থাৎ, আপনি যে কয়টা প্রোডাক্ট  বিক্রি করতে পারবেন সেই কয়টার জন্যই টাকা পাবেন। 

যত বেশি পরিমানে বিক্রি করতে পারবেন তত বেশি পরিমানে আপনারা কমিশন পাবেন। এই বিজনেস করলে আপনি অনায়াসেই প্রতি মাসে ২০ হাজার টাকা কিংবা তার থেকে ও বেশি টাকার রোজগার করতে পারবেন। এই কাজ করলে আপনার নিজের কোন প্রোডাক্ট থাকা লাগবে না বা Dallybary করার চিন্তা লাগবে না শুধু বিক্রি করে দিবেন আর কমিশন নিবেন। আশা করি বিষয়টা বুজতে পারছেন। মাসে ২০ হাজার টাকা আয় করার উপায় জেনে নিলেন আজকে।

আমাদের শেষ কথা

তাহলে আজকের আর্টিকেল থেকে আপনারা মাসে ২০ হাজার টাকা আয় করার উপায় নিয়ে জানতে পারলেন। আশা করি আজকের আর্টিকেলটি আপনাদের কাছে অনেক ভাল লেগেছে। আর এই রকমের বিভিন্ন তথ্য পেতে চাইলে আমাদের ওয়েবসাইট এর সাথেই থাকুন। আর লেখাটি কেমন লেগেছে সেটা আমাদেরকে কমেন্ট করে জানাবেন। আর লেখাটিকে আপনাদের বন্ধুদের কাছে শেয়ার করে দিবেন।                                         

Post a Comment

Previous Post Next Post